ইয়েমেনে শিশুসহ বেসামরিক নাগরিক হত্যা অন্যায়, স্বীকার সৌদি জোটের

গত সপ্তাহে ইয়েমেনে বিমান হামলায় শিশুসহ ৪০ জনের বেশি নিহত হওয়ার দায় স্বীকার করেছে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট। তারা এটিকে অন্যায় ও অযৌক্তিক বলে মন্তব্য করেছে।

সৌদি জোট জানিয়েছে, যারা এ ভুল করেছে, তাদের বিচারের আওতায় আনা হবে।

মিত্র দেশসহ আন্তর্জাতিক ব্যাপক চাপের মুখে দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে বেসামরিক লোকজনের হতাহতের সংখ্যা কমিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এ যুদ্ধে ১০ হাজারেরও বেশি লোক নিহত হয়েছেন। কয়েক বছরের যুদ্ধে দেশটি দুর্ভিক্ষের কিনারে গিয়ে পৌঁছেছে।

হুতি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে বিমান হামলা চালিয়ে যাওয়া পশ্চিমা সমর্থিত জোট বলছে, গত ৯ আগস্ট সিরিয়ায় সাদাপ্রদেশের বাজারে রকেট হামলাকারীদের লক্ষ্যবস্তু করে ওই হামলা চালানো হয়েছিল।

সৌদি জোট বলছে, তারা শিশুদের মানবঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে।

শনিবার যৌথ দুর্ঘটনা মূল্যায়ন দল(জেআইএটি) জানিয়েছে, গোয়েন্দা কর্মকর্তারা আভাস দিয়েছিলেন- ওই বাসটিতে হুতি বিদ্রোহীরা রয়েছেন। এর পরই একটি বৈধ লক্ষ্যবস্তুতে হামলাটি চালানো হয়েছিল।

তবে হামলায় বিলম্ব ও হামলা না করার নির্দেশটিও আরও তদন্ত করা উচিত বলে মনে করছে জেআইএটি।

সংস্থাটির আইনি পরামর্শক মানসুর আহমেদ বলেন, সঠিক সময় ও স্থানে হামলা চালাতে একটি বিমান প্রস্তুত করতে সেখানে পরিষ্কার বিলম্ব ছিল। এ সময় এ বাসটি একটি সামরিক হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছে। পারিপার্শ্বিক ক্ষতি এড়াতে উন্মুক্ত স্থানে এ হামলা চালানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *