গুরুদাসপুরে চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৪ জনের মনোনয়নপত্র জমা

বার্তা ডেস্ক..পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথমধাপের নির্বাচনে অংশগ্রহনকারী প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিলো ১১ ফেব্রুয়ারী সোমবার। নির্বাচনে অংশ নিতে গুরুদাসপুরে ১৫ প্রার্থী ইতিপুর্বে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও শেষ দিনে জমা দিয়েছেন ১৪ জন। শেষ দিনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৩,ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী। তারা মনোনয়নপত্র উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ মাহাবুবুল কবিরের কার্যালয়ে জমা দেন। চেয়ারম্যান পদে প্রথমে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসেন জেলা আ.লীগের তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক,উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও বিলচলন শহীদ সামসুজ্জোহা সরকারী কলেজের সাবেক ভিপি আনোয়ার হোসেন। এ সময় তার সাথে ছিলেন ধারাবারিষা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন মাষ্টার,চাপিলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলা উদ্দিন ভুট্টু,বিয়াঘাট ইউনিয়ন চেয়ারম্যান প্রভাষক মোজাম্মেল হক,নাজিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান শওকত রানা লাবু,চাঁচকৈড় নাজিম উদ্দিন স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষ জয়নাল আবেদীন দুলাল,চাপিলা ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আবু জাফর মিয়া, ধারাবারিষা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ আব্দুল মজিদ,ধারাবারিষা ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা সোলেমান আলী বিশ্বাস প্রমুখ। মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে সেখানেই তারা দোয়া করেন। পরে গুরুদাসপুর পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে আনোয়ার হোসেনের সমর্থনে একটি বিশাল মোটর সাইকেল শোভাযাত্রা বের হয়ে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করেন। এর পরে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনিত সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও পৌর আ.লীগ সভাপতি জাহিদুল ইসলাম। তার সাথে ছিলেন উপজেলা আ.লীগের সভাপতি এ্যাড.আনিছুর রহমান,উপাধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান হেলাল,সাবেক ছাত্রনেতা কামাল সরকার,প্রভাষক আব্দুল হালিম প্রমুখ। নাটোর জেলা আ.লীগের যুগ্ম সম্পাদক সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সরকার এমদাদুল হক মোহাম্মদ আলীও মনোনয়নপত্র জমা দেন। তার সাথে ছিলেন উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র শাহনেওয়াজ আলী মোল্লা,প্রভাষক রফিকুল ইসলাম রফিক,য়ুবলীগ উপজেলা শাখার সভাপতি এসএম রাসেদ সরকার প্রমুখ। আলহাজ জাহিদুল ইসলাম দলীয় মনোনয়ন পেলেও সরকার মোহাম্মদ আলী ও আনোয়ার হোসেন সতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন। প্রধান বিরোধী দল বিএনপি এ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না। এ কারনে এ দলের কোন প্রার্থী নেই। ক্ষমতাশীন আওয়ামীলীগ প্রথমদিকে দলীয় প্রতিকে এ দুই পদে মনোনয়ন দেবার কথা বললেও পরে ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলা ও পুরুষ) পদ উন্মুক্ত থাকায় দল কাউকেই মনোনয়ন দেয়নি। এ দু’পদেই প্রার্থীরা সতন্ত্র হিসাবে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও পৌর আ.লীগের যুগ্ম সম্পাদক রেজাউল করিম সবুজ,বিলচলন শহীদ সামসুজ্জোহা কলেজের সাবেক জিএস ও উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান সুজা,রা.বি’র ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি শরিফুল ইসলাম শরিফ,দলিল লেখক সমিতির সাবেক সাধারন সম্পাদক আলহাজ মোঃ আব্দুর রহিম মহুরী,বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আলাল শেখ। এ ছাড়াও এ পদের প্রার্থীরা হলেও ধারাবারিষা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম ক্ষ্যাপন,ইসরাফিল হোসেন ও উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইমরান আলী শাহ। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানপদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা মহিলা দলের সভাপতি শাহিদা আক্তার মিতা,সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান রোকসানা আক্তার লিপি ও সাবেক মহিলা কাউন্সিলর মতিয়া পারভীন। আগামী ১২ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার জেলা নির্বাচন অফিসারের কার্যালয়ে প্রতিদ্বিন্দী প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাই অনুষ্ঠিত হবে। এলাকার ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে চেয়ারম্যান পদের নির্বাচন হবে বেশ প্রতিদ্বন্দিতাপুর্ন। তারা সৎ,যোগ্য,শিক্ষিত,মার্জিত প্রার্থী আর যার মাধ্যমে এলাকার উন্নয়নের ধারা বেগবান হবে তাকেই ভোট দেবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *