ফের রোনাল্ডোর বিরুদ্ধে ধর্ষণ অভিযোগের তদন্ত শুরু

ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর বিরুদ্ধে ওঠা ধর্ষণ অভিযোগ নিয়ে নতুন করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। অভিযোগকারী ক্যাথরিন মায়োরগার অনুরোধে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা। অভিযোগে এ নারী বলেন, ২০০৯ সালে লাসভেগাসের এক হোটেলে তাকে ধর্ষণ করেন সিআর সেভেন।

সর্বপ্রথম এ খবর প্রকাশ করে ফুটবল বিশ্বে হইচই ফেলে দেয় জার্মানির বিখ্যাত পত্রিকা দের স্পাইগেল। সংবাদমাধ্যমটির দাবি, ঘটনার পরই পুলিশের কাছে নালিশ করেন ক্যাথরিন। তবে ২০১০ সালে আদালতের বাইরে রোনাল্ডোর সঙ্গে মিটমাট করে নেন তিনি। প্রতিশ্রুতি দেন, বিষয়টি নিয়ে ভবিষ্যতে মুখ খুলবেন না। বিনিময়ে মহাতারকার কাছ থেকে ২ কোটি ৭৫ লাখ ১৫ হাজার ৬২৫ টাকা নেন ৩৪ বছর বয়সী ওই নারী।

কিন্তু বিষয়টি গোপন রাখতে রোনাল্ডোর সঙ্গে করা চুক্তিকে এখন গুরুত্বহীন মনে করছেন ক্যাথরিনের আইনজীবীরা। তাই ফের তদন্তের অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।

লাসভেগাস পুলিশ বলছে, ২০০৯ সালে ওই নারী অভিযোগ তোলার পরই এ নিয়ে আমরা তদন্তও করেছিলাম। তবে কাউকে সন্দেহজনক বলে মনে হয়নি। অভিযোগকারীর অনুরোধে ফের তদন্ত করছি। গেল মাস থেকে এ তদন্ত চলছে।

এ সংবাদ চাউর হওয়ার পর একে বানোয়াট ও ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দেন পর্তুগিজ যুবরাজ। ৩৩ বছর বয়সী ফুটবলার ইনস্টাগ্রামে মন্তব্য করেন, সম্পূর্ণ বাজে গল্প। পত্রিকাটির বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্পাইগেলকে ক্যাথরিন বলেন, ভয় ও পরিবারের নিরাপত্তার কথা ভেবে মুখ বন্ধ রাখতে রাজি হয়েছিলাম। ভেবেছিলাম রোনাল্ডোর বিরুদ্ধে অভিযোগ করে সুবিচার পাব না। সেই দুঃসহ স্মৃতি আমাকে এখনও তাড়া করে বেড়ায়। এতদিন পর মনে হচ্ছে, তার বিরুদ্ধে লড়াই করার মতো সক্ষমতা হয়েছে।

টিনএজে মডেল ছিলেন ক্যাথরিন। পরে পেশা হিসেবে বেছে নেন শিক্ষকতা। এখন সেটিও ছেড়ে দিয়েছেন।