ইমরান তাহিরের হ্যাটট্রিকে ৭৮ রানের লজ্জা জিম্বাবুয়ের

চলতি মাসের শেষ দিকে বাংলাদেশ সফরে আসছে জিম্বাবুয়ে। এর আগে প্রস্তুতিটা ভালো হচ্ছে না জিম্বাবুইয়ানদের। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও বেহাল দশা তাদের। ১৯৯ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ৭৮ রানেই অলআউট হয়ে গেছে তারা। লজ্জার হারে এক ম্যাচ বাকি থাকতেই তিন ওয়ানডের সিরিজ হেরে গেলেন সফরকারীরা।

জবাবে মাত্র ২৪ ওভারে ৭৮ রানে গুটিয়ে যায় জিম্বাবুয়ে। দুই অঙ্কের কোটা স্পর্শ করতে পারেন সবে তিনজন। সর্বোচ্চ ২৭ রান করেন অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। ১২ রানে অপরাজিত থাকেন ডোনাল্ড তিরিপানো। এ ছাড়া ১০ রান করেন অভিজ্ঞ ব্র্যান্ডন টেইলর।

জিম্বাবুয়েকে এমন লজ্জা দেয়ার নেপথ্য নায়ক ইমরান তাহির। জিম্বাবুয়ে ব্যাটসম্যানদের নাচিয়ে ছাড়েন তিনি। করেন দুর্দান্ত এক হ্যাটট্রিক। এতেই ক্ষ্যান্ত হননি প্রোটিয়া লেগি। প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানদের চোখের জল ও নাকের পানি এক করে ২৪ রানে ৬ উইকেট তুলে নেন মায়াবী ঘাতক।

দ্বিতীয় ইনিংসের ১৮তম ওভারের শেষ বলে এবং ২০তম ওভারের প্রথম দুই বলে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন তাহির। ১৮তম ওভারের শেষ বলে স্টাম্পিংয়ের ফাঁদে ফেলেন শন উইলিয়ামসকে। ২০তম ওভারের প্রথম বলে এলবিডব্লিউ করেন পিটার মুরকে, পরের বলে পরিষ্কার বোল্ড করে সাজঘরে পাঠান ব্রেন্ডন মাভুবাকে।

এর আগে ব্লোম ফন্টেইনে টস জিতে আগে ব্যাটিং নেন দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক জেপি ডুমিনি। তবে তার সিদ্ধান্ত যথার্থ প্রমাণ করতে পারেননি টপ ও মিডল অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা। জিম্বাবুয়ে বোলারদের তোপে ১০১ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে মহাবিপর্যয়ে পড়েন প্রোটিয়ারা।

সেখান থেকে দলকে টেনে তোলেন ডেল স্টেইন। শেষ দিকে ৮৫ বলে ৮ চার ও ১ ছক্কায় ৬০ রানের লড়াকু ইনিংস খেলেন তিনি। এককথায়, দীর্ঘদিন পর জাতীয় দলে প্রত্যাবর্তনে পুরোদস্তুর ব্যাটসম্যান হয়ে যান এ পেসার। শেষ পর্যন্ত তার অনন্য ফিফটি ও আন্দিলে ফিকোয়াওর ২৮ রানে ১৯৮ রানের পুঁজি পায় ডুমিনি বাহিনী।